বৃহস্পতিবার   ১১ আগস্ট ২০২২   শ্রাবণ ২৬ ১৪২৯   ১৩ মুহররম ১৪৪৪

 ফরিদপুর প্রতিদিন
সর্বশেষ:
বিভিন্ন রুটে ভাড়ার নতুন তালিকা প্রকাশ করলো বিআরটিএ
৪৭

পুলিশের ৬০ গুলিতে ঝাঁঝরা কৃষ্ণাঙ্গ চালক

প্রকাশিত: ৪ জুলাই ২০২২  

ট্রাফিক আইন অমান্য করে পালানোর সময় যুক্তরাষ্ট্রে এক কৃষ্ণাঙ্গ চালককে গুলিতে ঝাঁঝরা করেছে পুলিশ। পরপর ৬০টি গুলি খেয়ে নিহত হন চালক জেল্যান্ড ওয়াকার।

সোমবার ওহাইওতে এ ঘটনা ঘটেছে। অবশ্য পুলিশের দাবি, ওয়াকারের গুলির পর পালটা গুলি ছোড়েন তারা। এর পরই এ ঘটনার বিচার দাবিতে বিক্ষোভ করছেন সাধারণ মার্কিনিরা।

পৃথক এক ঘটনায় বৃহস্পতিবার কেন্টাকিতে তিন পুলিশ কর্মকর্তা নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ। এএফপি। ওয়াকার হত্যার ঘটনায় সংঘটিত বিক্ষোভ ধীরে ধীরে বড় হচ্ছে। অ্যাক্রনে আরও বড় সমাবেশের ডাক দেওয়া হয়েছে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে শহরবাসীকে শান্ত থাকার আর্জি জানিয়েছেন পুলিশ কমিশনার ও মেয়র। ঘটনার পর পুলিশ দাবি করেছে, রাত সাড়ে ১২টার দিকে ট্রাফিক সিগন্যাল ভেঙে একটি গাড়ি অত্যন্ত দ্রুত গতিতে যাচ্ছিল। পুলিশ সেটির পিছু নেয়।

চালককে গাড়ি থেকে নামতে বলে তারা। কিন্তু গাড়ির ভেতর থেকেই গুলি ছোড়েন চালক ওয়াকার। এক পর্যায়ে গাড়ি থেকে নেমে পালানোর চেষ্টা করেন ওয়াকার।

পুলিশের বিবৃতি অনুয়ায়ী, ‘পালানোর সময় তাকে দেখে মনে হচ্ছিল, আবারও গুলি চালাতে পারে সে। তাই আমরা গুলি চালাতে বাধ্য হই।’ ঘটনাস্থলেই মারা যান ২৫ বছর বয়সি জেল্যান্ড ওয়াকার।

কৃষ্ণাঙ্গ যুবকের প্রতিবেশী ও আত্মীয়রা জানিয়েছেন, ডেলিভারি বয়ের কাজ করতেন জেল্যান্ড। তিনি শান্ত ও ভদ্র স্বভাবের ছিলেন। যুবকটি যে পুলিশকে লক্ষ্য করে গুলি চালিয়েছিল বা পরেও গুলি চালানোর চেষ্টা করেছিল তার কোনো প্রমাণ দিতে পারেনি পুলিশ।

এর কোনো প্রত্যক্ষদর্শীর বরাতও দিতে পারেনি তারা। এ ছাড়া তার সঙ্গে কোনো আগ্নেয়াস্ত্র ছিল কি না, সে বিষয়েও নীরব রয়েছে পুলিশ।

এসব প্রশ্নের উত্তর না মেলায় পুলিশের বিরুদ্ধে হত্যার অভিযোগ এনেছে জেল্যান্ডের পরিবার। তাদের আইনজীবী ববি ডি সেলো দাবি করেছেন, পুলিশ সেদিন প্রায় ৯০ রাউন্ড গুলি চালিয়েছিল। যার মধ্যে অন্তত ৬০টি জেল্যান্ডের শরীরকে ঝাঁঝরা করেছে। গুলিতে প্রায় বিকৃত হয়ে গেছে জেল্যান্ডের মুখমণ্ডল।

এ ঘটনার পরে ওহাইওর বিভিন্ন শহরে বেশ কয়েকটি বিক্ষোভ মিছিল হয়েছে। শহরবাসীকে শান্ত থাকার আর্জি জানিয়ে পুলিশ কমিশনার স্টিভ মাইলেট বলেছেন, ‘ঠিক কী ঘটেছিল, তা খতিয়ে দেখছি। আপনাদের কাছে অনুরোধ, আইন নিজেদের হাতে তুলে নেবেন না।’ একই বার্তা দিয়েছেন মেয়র ড্যান হরিগ্যান।

এদিকে যুক্তরাষ্ট্রের কেন্টাকি অঙ্গরাজ্যের একটি আবাসিক এলাকায় ওয়ারেন্ট দিতে গিয়ে গুলিবিদ্ধ হয়ে নিহত হয়েছেন তিন পুলিশ সদস্য। সংবাদমাধ্যম বিবিসি জানায়, বৃহস্পতিবার এক ব্যক্তিকে ওয়ারেন্ট দিতে গিয়েছিলেন পুলিশ সদস্যরা।

তাদের দেখে একটি রাইফেল থেকে এলোপাতাড়ি গুলি ছোড়েন ওই ব্যক্তি। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন তিন পুলিশ সদস্য। আহত হন আরও পাঁচজন। অ্যাপালাচিয়ার পাহাড়ের ছোট শহর অ্যালেনের একটি বাড়িতে এ ঘটনার কয়েক ঘণ্টা পর ৪৯ বছর বয়সি ল্যান্স স্টর্জকে হেফাজতে নিয়েছে পুলিশ।

 ফরিদপুর প্রতিদিন
 ফরিদপুর প্রতিদিন
এই বিভাগের আরো খবর