শনিবার   ২০ জুলাই ২০২৪   শ্রাবণ ৪ ১৪৩১   ১৩ মুহররম ১৪৪৬

 ফরিদপুর প্রতিদিন
৪৬০

সম্পদের হিসাব দাখিল করতেই হবে সরকারি কর্মচারীদের

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৩ জুলাই ২০২৪  

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সম্পদ বিবরণী সংক্রান্ত বিধান যথাযথভাবে বাস্তবায়নের নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে বিদ্যমান বিধি বাস্তবায়নে কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, তা জানিয়ে তিন মাসের মধ্যে অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

মঙ্গলবার জনস্বার্থে করা রিট আবেদনের প্রাথমিক শুনানির পর বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার ও বিচারপতি কাজী ইবাদত হোসেনের হাইকোর্ট বেঞ্চ রুলসহ এ আদেশ দেন।
আদেশে আদালত বলেন, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের সম্পদ বিবরণী প্রকাশের আইন আছে।

কিন্তু আইনের বাস্তবায়ন নেই। আইন থেকেও তার বাস্তবায়ন না হওয়াটা দুঃখজনক। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯-এর ১৩(১) (২) বিধিমালা যথাযথভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।

সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের অবৈধ সম্পদ (স্থাবর-অস্থাবর) অর্জন ঠেকাতে যথাযথ আইনি প্রক্রিয়ার মাধ্যমে নির্দেশিকা বা নীতিমালা করার ক্ষেত্রে সংশ্লিষ্টদের নিষ্ক্রিয়তা কেন আইনগত কর্তৃত্ববহির্ভূত ঘোষণা করা হবে না, জানতে রুল জারি করেছেন আদালত।

সেই সঙ্গে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯-এর ১৩(১) (২) বিধি অনুসারে অবিলম্বে যথাযথ উদ্যোগের মাধ্যমে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের (স্থাবর-অস্থাবর) সম্পদ বিবরণী দাখিল এবং তা আদালতে দাখিলের নির্দেশ কেন দেওয়া হবে না, তা-ও জানতে চাওয়া হয়েছে রুলে।

মন্ত্রিপরিষদসচিব, অর্থ মন্ত্রণালয়ের দুই সচিব, জনপ্রশাসনসচিব, স্বরাষ্ট্রসচিব, আইনসচিব, দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) চেয়ারম্যান, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) চেয়ারম্যান, বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নরসহ ১০ বিবাদীকে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

সরকারি চাকুরে ও তাঁদের পরিবারের সদস্যদের অবৈধ সম্পদ অর্জন ঠেকানোর প্রয়োজনীয় নির্দেশ চেয়ে ১ জুলাই হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় রিট করেন সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী সুবীর নন্দী দাশ। রিটের পক্ষে তিনি নিজেই শুনানি করেন।

রাষ্ট্রপক্ষে শুনানি করেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক। দুদকের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী এ কে এম ফজলুল হক। 
আইনজীবী সুবীর নন্দী দাশ পরে সাংবাদিকদের বলেন, পরবর্তী আদেশের জন্য আদালত আগামী ২২ অক্টোবর তারিখ রেখেছেন। এ সময়ের মধ্যে বিবাদীদের অগ্রগতি প্রতিবেদন দিতে বলেছেন আদালত।

সংবাদমাধ্যমের তথ্যের বরাত দিয়ে রিটকারী আইনজীবী সুবীর নন্দী দাস শুনানিতে বলেন, সরকারি কর্মচারীদের একটি অংশ ব্যাপক দুর্নীতি করছে।

বিভিন্ন সময় খবর-প্রতিবেদনে এসেছে তারা অর্থ পাচার করেছে এবং এ নিয়ে বিবাদীদের উল্লেখযোগ্য কোনো পদক্ষেপ নেই। এর ফলে জনগণ তাঁদের প্রতি আস্থা হারাচ্ছে।
এই আইনজীবী বলেন, সংসদ সদস্যরা সরকারি কর্মচারীর মতো সরকারি কোষাগার থেকে কোনো বেতন পান না। কিন্তু গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ, ১৯৭২ ১২(৩)(খ) অনুসারে সংসদ নির্বাচনের আগে প্রার্থীদের হলফনামার মাধ্যমে সম্পদের বিবরণী এবং আয়কর রিটার্ন জমা দিতে হয়। কিন্তু সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন-ভাতা দেওয়া হয় জনগণের করের টাকা থেকে।

পলিসি রিসার্চ ইনস্টিটিউটের (পিআরআই) তথ্য মতে, রাজস্বের ৪৩ শতাংশ খরচ করা হয় তাঁদের বেতন-ভাতা বাবদ। সুতরাং তাঁদের সম্পদের বিবরণী জানার অধিকার জনগণের আছে। অথচ সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী (আচরণ) বিধিমালা, ১৯৭৯-এর ১৩(১) (২) বিধিমালা অনুসারে চাকরিতে যোগ দেওয়ার এবং প্রতি পাঁচ বছর পর পর সম্পদ বিবরণী দেওয়ার বিধান রয়েছে। দুর্নীতি ঠেকাতে এই বিধানের যথাযথ বাস্তবায়ন দরকার। তবে এই বিধিমালার ১০ বিধি অনুসারে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ধারদেনা বা আর্থিক প্রতিদান সম্পদ বিবরণীতে প্রকাশে ছাড় দেওয়া হয়েছে। এমন আরো কিছু অস্পষ্ট ধারা ও বিধানের সুযোগ তাঁরা নিয়ে থাকেন। আর এ ধরনের অস্পষ্টতা-অস্বচ্ছতা দুর্নীতি সৃষ্টি করে।

সুবীর নন্দী বলেন, সাবেক পুলিশপ্রধান বেনজীর আহমেদের বিরুদ্ধে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ উঠেছে। এই বেনজীর-মতিউরদের মতো শীর্ষ পদধারীদের বিরুদ্ধে যখন দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে, তখন আমাদের সার্বভৌমত্ব হুমকির মুখে পড়ে। এ রকম ব্যক্তিরা শীর্ষ পদে থাকলে তাঁরা রাষ্ট্রের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করবেন, না তাঁদের সম্পদ রক্ষা করবেন? স্বাভাবিকভাবেই রাষ্ট্রের জনগণ, সার্বভৌমত্ব রক্ষা না করে তাঁরা তাঁদের নিজেদের সম্পদই রক্ষা করবেন।

শুনানির সময় বেঞ্চের জ্যেষ্ঠ বিচারপতি মো. নজরুল ইসলাম তালুকদার বলেন, দুর্নীতি-অর্থপাচার সুশাসন ও উন্নয়নের অন্তরায়। তাই যেকোনো মূল্যে দুর্নীতি-অর্থপাচার বন্ধ করা উচিত। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু বলেছেন, সোনার বাংলা গড়তে হলে সোনার মানুষ গড়তে হবে। ঘুষ-দুর্নীতি-অর্থপাচার দিয়ে সোনার মানুষ গড়া যায় না। এর জন্য সবাইকে নিজ নিজ জায়গা থেকে কাজ করতে হবে। আইনজীবী, সাংবাদিকসহ সমাজের সব শ্রেণি-পেশার মানুষকে দুর্নীতির বিরুদ্ধে একসঙ্গে কাজ করতে হবে। শুধু সরকারের ওপর নির্ভর করলে চলবে না। সবাইকে নিয়ে আন্দোলন গড়ে তুলতে হবে।

এই বিচারপতি বলেন, ভারতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদ বিবরণী সংক্রান্ত আইন আছে। সরকারি চাকরিতে যোগ দেওয়ার সময় তাঁদের সম্পদের হিসাব দিতে হয়। আবার অবসরে যাওয়ার আগেও দিতে হয়। দুই হিসাবের মধ্যে ১০ শতাংশের বেশি হেরফের হলেই ধরা হয়। আমাদের দেশে আইন আছে। কিন্তু প্রয়োগ নেই। আইনের প্রয়োগ না থাকায় দেখতে পাচ্ছি সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অঢেল সম্পদের মালিক হচ্ছেন।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এ কে এম আমিন উদ্দিন মানিক শুনানিতে বলেন, বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে দুর্নীতি সূচকে বাংলাদেশ চ্যাম্পিয়ন হয়েছিল। তখন জোট সরকার জরিমানা দিয়ে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দিয়েছিল, যা দুর্নীতিকে উৎসাহিত করেছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছিলেন। এই সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি ঘোষণা করেছে। দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরাই এখন প্রধান কাজ। এটা করার জন্য যা যা করা দরকার, তা করতে হবে। সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদ বিবরণী দেওয়ার বিধান আছে, সুতরাং তাঁরা সম্পদ বিবরণী দিতে বাধ্য। কিন্তু বিধান বাস্তবায়নে যাতে কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী অহেতুক নাজেহাল না হন, সেটিও খেয়াল রাখতে হবে।

দুদকের আইনজীবী এ কে এম ফজলুল হক শুনানিতে সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের সম্পদের হিসাব বিবরণী সংক্রান্ত আইন-বিধি সংশোধন করে অস্পষ্টতা দূর করে যথাযথ প্রয়োগের কথা বলেন। সব পক্ষের শুনানির পর রুলসহ আদেশ দেন উচ্চ আদালত।

 ফরিদপুর প্রতিদিন
 ফরিদপুর প্রতিদিন
এই বিভাগের আরো খবর