শুক্রবার   ০৯ ডিসেম্বর ২০২২   অগ্রাহায়ণ ২৪ ১৪২৯   ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

 ফরিদপুর প্রতিদিন
সর্বশেষ:
রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে ফিরে যেতে হবে: প্রধানমন্ত্রী সব ক্ষেত্রে শুদ্ধাচার চর্চার আহ্বান আইজিপির ১০ ডিসেম্বর পরিবহন ধর্মঘট থাকছে না ফরিদপুরে চলছে দানা পেঁয়াজ চাষ ফরিদপুর পুলিশের শ্রেষ্ঠ সার্কেল অফিসার সুমন রঞ্জন সরকার চাল আমদানিতে শুল্ক সুবিধার মেয়াদ তিন মাস বাড়ল
৮৪

মাগুরায় বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুর ৮৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ২৪ নভেম্বর ২০২২  

মাগুরায় বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ মাগুরা জেলা শাখার উদ্যোগে বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসুর ৮৫ তম মৃত্যুবার্ষিকী পালিত হয়েছে। এ উপলক্ষ্যে ২৩ নভেম্বর মঙ্গলবার সৈয়দ আতর আলী গণগ্রন্থাগার মিলনায়তনে আলোচনা সভা, কুইজ প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

বেলা ১১ টায় বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের কেন্দ্রীয় সদস্য প্রকৌশলী শম্পা বসুর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনায় অংশ নেন শিক্ষাবিদ কাজী নজরুল ইসলাম ফিরোজ, নাজির আহমেদ কলেজের সহকারি অধ্যাপক ধ্রুব কুমার দাম, মাগুরা জেলার বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও কবি ওহিদ কামাল বাবলু, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য লাবনী সুলতানা, বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চ মাগুরা জেলা শাখার সংগঠক গোলাম পারভেজ। সভা পরিচালনা করেন বিজ্ঞান আন্দোলন মঞ্চের জেলা সংগঠক নাফিসা নাওয়ার নিঝুম।

আলোচকবৃন্দ বলেন, বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসু ছিলেন একজন বাঙালি পদার্থবিদ, উদ্ভিদবিদ ও জীববিজ্ঞানী এবং প্রথম দিকের একজন কল্পবিজ্ঞান রচয়িতা। ভারতীয় উপমহাদেশে তিনি ব্যবহারিক ও গবেষণাধর্মী বিজ্ঞানের সূচনা করেন। ভারতবর্ষে আধুনিক বিজ্ঞান প্রচলনের পথিকৃত্ ছিলেন বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসু। তাঁর কারণেই এ অঞ্চলে বাংলা ভাষায় বিজ্ঞানচর্চা প্রয়াস পেয়েছে। বিজ্ঞানী মার্কনি রেডিও আবিষ্কারের আগেই বিজ্ঞানী জগদীশ চন্দ্র বসু বিনা তারে এক স্থান থেকে আরেক স্থানে তথ্য-সংকেত বিনিময়ে সক্ষম হয়েছিলেন এবং প্রদর্শনও করেছিলেন। তিনি সব সময় জীব ও জড়ের মধ্যে ঐক্যের সন্ধান খুঁজতেন। তিনি বলেছিলেন, মানুষ যেভাবে সাড়া দেয়, গাছও একইভাবে সাড়া দেয়। সে সময় উদ্ভিদকে জড় হিসেবেই দেখা হতো। পৃথিবীর বড় বিজ্ঞানীরা যেখানে ৬০ মিলিমিটার তরঙ্গদৈর্ঘ্যরে রেডিওয়েভ নিয়ে কাজ করতে পারছিলেন না, সেখানে জগদীশ চন্দ্রই প্রথম পাঁচ মিলিমিটার দৈর্ঘ্যের রেডিও তরঙ্গে সংকেত বিনিময় আবিষ্কার করেছিলেন। তিনি দুইশ বৈজ্ঞানিক যন্ত্রপাতি আবিষ্কার করেছিলেন। জগদীশ চন্দ্র বসু রাতের অন্ধকারে ছবি তোলার উপযোগী ক্যামেরাও বানিয়েছিলেন। সাহিত্যের প্রতিও তাঁর প্রবল অনুরাগ ছিল। বিজ্ঞানী আইনস্টাইন বলেছিলেন, “জগদীশ চন্দ্র যেসব অমূল্য তথ্য পৃথিবীকে উপহার দিয়েছেন তার যেকোনোটির জন্য বিজয়স্তম্ভ তৈরি করা উচিত।

 বিজ্ঞানের ও জ্ঞানগজতের  বিভিন্ন শাখায় জগদীশ চন্দ্র বসু কাজ করেছিলেন শুধু সত্য জানার উদ্দেশ্যে। আজকের ছাত্র ও তরুণ প্রজন্মের জন্য তিনি অনুকরণীয় ও স্মরণীয় ব্যক্তিত্ব।

জগদীশ চন্দ্র বসু ১৮৫৮ সালের ৩০শে নভেম্বর মুন্সীগঞ্জে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা ব্রাহ্ম ধর্মাবলম্বী ভগবান চন্দ্র বসু ফরিদপুরের ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট ছিলেন। ১৯৩৭ সালের ২৩ নভেম্বর বিজ্ঞানের এই দিকপালের মৃত্যু হয়।

 ফরিদপুর প্রতিদিন
 ফরিদপুর প্রতিদিন
এই বিভাগের আরো খবর