শুক্রবার   ১৯ জুলাই ২০২৪   শ্রাবণ ৪ ১৪৩১   ১৩ মুহররম ১৪৪৬

 ফরিদপুর প্রতিদিন
৪৪১

দুর্নীতির বিরুদ্ধে আসতে পারে কঠোর নির্দেশনা

নিউজ ডেস্ক

প্রকাশিত: ৪ জুলাই ২০২৪  

সরকারের নানা উদ্যোগের পরও সরকারি দপ্তরে কমছে না দুর্নীতি। প্রশাসনের কিছু কর্মকর্তা দুর্নীতি করছেনই। এতে বিব্রত হচ্ছে সরকারের পুরো ব্যবস্থাপনা। এ নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করতে আজ ৪ জুলাই বৃহস্পতিবার সচিব সভা ডাকা হয়েছে।

বিকেল সাড়ে ৪টায় মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে এই সভা অনুষ্ঠিত হবে। এতে সভাপতিত্ব করবেন মন্ত্রিপরিষদসচিব মো. মাহবুব হোসেন। সভায় দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর নির্দেশনা আসতে পারে।
মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, সরকারের নির্বাচনী ইশতেহারে এবার দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ, জবাবদিহি রাষ্ট্র গঠনের কথা বলা হয়েছে।

তাই নতুন সরকারের নির্বাচনী ইশতেহার বাস্তবায়ন, নতুন অর্থবছরের বাজেট স্বচ্ছতার সঙ্গে বাস্তবায়ন, উন্নয়ন প্রকল্প প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন, আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি, সামষ্টিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি, মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ ও আর্থিক খাতে দক্ষতা বৃদ্ধি, দুর্নীতি দমনে ব্যবস্থা নেওয়াসহ বিভিন্ন বিষয়ে সচিব সভায় আলোচনা হতে পারে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সমন্বয় ও সংস্কার সচিব মো. মাহমুদুল হোসাইন খান গতকাল রাতে বলেন, সচিব সভায় সচিবদের চলমান পরিস্থিতি ও সমসাময়িক বিষয়ে বিভিন্ন নির্দেশনা দেওয়া হতে পারে। মন্ত্রিপরিষদসচিব বিভিন্ন মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের কাছে তাঁদের কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত হবেন। এরপর সার্বিক বিষয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা দেবেন।

অন্যান্য সচিব সভার মতো এই সভাতেও সব সচিব উপস্থিত থাকবেন। 

জনপ্রশাসনমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন বলেন, রূপকল্প ২০৪১-এর মূল লক্ষ্য হলো দুর্নীতিমুক্ত, স্বচ্ছ ও জবাবদিহি রাষ্ট্রব্যবস্থা গড়ে তোলা। এ জন্য সরকার দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিচ্ছে। নির্বাচনী ইশতেহারেও স্বচ্ছ ও জবাবদিহির কথা বলা হয়েছে। প্রশাসনের প্রত্যেক কর্মকর্তাকে এ বিষয়ে কাজ করতে হবে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুর্নীতির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকার অভিযান শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেছেন, সে যে-ই হোক, দুর্নীতি করলে কারো রক্ষা নেই। যারাই দুর্নীতি করবে, তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। গত শনিবার জাতীয় সংসদে ২০২৪-২৫ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরকারের এমন অবস্থান তুলে ধরেন সরকারপ্রধান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক সচিব বলেন, সচিব সভার জন্য তাঁদের নোটিশ দেওয়া হয়েছে। তবে নোটিশে বিস্তারিত কিছু বলা নেই। মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তাঁদের জানানো হয়েছে বৈঠক শুরুর আগে প্রত্যেক সচিবকে সংশ্লিষ্ট বিষয়ে কাগজপত্র দেওয়া হবে।

মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ ও প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সচিব সভায় সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের দুর্নীতি দমনে সক্রিয় হওয়ার তাগিদ দেওয়া হবে। কারণ পুলিশের সাবেক আইজিপি বেনজীর আহমেদ, জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদ্য সাবেক সদস্য মতিউর রহমানসহ সরকারের অনেক কর্মকর্তা কোটি কোটি টাকার মালিক হওয়ার অভিযোগ থাকলেও সরকারি দপ্তরে কোনো তথ্য নেই। গণমাধ্যমে খবর প্রকাশের পর বিষয়টি আলোচনায় এসেছে। তাই সব মন্ত্রণালয় ও বিভাগের সচিবদের নিজ নিজ জায়গা থেকে দুর্নীতি প্রতিরোধে কাজ করতে হবে। অনেকে ধারণা করেন, দুর্নীতি দমন শুধু দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কাজ। এভাবে ভাবলে হবে না। প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহনশীলতার কথা বলেছেন। তাই এ বিষয়ে সব সচিবকে কাজ করার নির্দেশ দেবেন মন্ত্রিপরিষদসচিব।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উপস্থিতিতে সর্বশেষ সচিব সভা হয় গত ৫ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে। সভায় দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে পণ্য সরবরাহের বিভিন্ন পর্যায়ে চাঁদাবাজির বিরুদ্ধে সচিবদের কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী। দুর্নীতি প্রতিরোধ, সরকারি অর্থের সাশ্রয় ও রপ্তানি বৃদ্ধির মতো বিষয়গুলোও বিশেষ গুরুত্ব পায় সভায়।

 ফরিদপুর প্রতিদিন
 ফরিদপুর প্রতিদিন
এই বিভাগের আরো খবর