শনিবার   ২০ জুলাই ২০২৪   শ্রাবণ ৪ ১৪৩১   ১৩ মুহররম ১৪৪৬

 ফরিদপুর প্রতিদিন
২৭৭

আর্জেন্টিনার বিপক্ষে যুদ্ধের হুঙ্কার কানাডার

স্পোর্টস ডেস্ক

প্রকাশিত: ৯ জুলাই ২০২৪  

দুই দলের গ্রুপ পর্বের দেখায় ছিল কোপা আমেরিকা শুরুর রোমাঞ্চ, জয়ে শুরুর প্রত্যাশা। এবারের পরিস্থিতি একেবারেই ভিন্ন। রোমাঞ্চের জায়গা নিয়েছে ‘বাঁচা-মরার প্রশ্ন।’

সত্যিই তাই। কেননা, পা হড়কানোর কোনো সুযোগই যে নেই। আর্জেন্টিনার বিপক্ষে সেমি-ফাইনাল সামনে রেখে কানাডার ডিফেন্ডার আলফুঁস ডেভিস তাই হুঙ্কার ছুড়লেন। বললেন, মেসি-দি মারিয়াদের বিপক্ষে এবার ‘যুদ্ধে’ নামবেন তারা।

নিউ জার্সির মেট লাইফ স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় বুধবার সকাল ছয়টায় ফাইনালে ওঠার লড়াইয়ে মুখোমুখি হবে দুই দল; যেকোনো বিবেচনাতেই যাদের মধ্যে ব্যবধান যোজন যোজন।

কোপা আমেরিকার আঙিনায় উরুগুয়ের সঙ্গে যৌথভাবে সর্বোচ্চ সাফল্য ১৫টি শিরোপা দ্যুতি ছড়াচ্ছে আর্জেন্টিনার শোকেসে। মুকুট ধরে রাখার মিশনে এসে দারুণ গতিতে ছুটছেও তারা। অন্যদিকে, লাতিন আমেরিকার ফুটবল শ্রেষ্ঠত্বের আসরে এই প্রথম আমন্ত্রিত কানাডার খেলতে আসা। তবে চমক দেখিয়ে তারাও উঠে এসেছে সেরা চারে।

মুখোমুখি লড়াইয়ে প্রতিপক্ষের ধারেকাছে নেই কানাডা। ২০১০ সালে প্রীতি ম্যাচে প্রথম দেখায় ৫-০ গোলের হার সঙ্গী হয়েছিল তাদের। এ আসরে গ্রুপ পর্বের দেখায় তারা মেসিদের বিপক্ষে হেরে যায় ২-০ ব্যবধানে।

চলতি বছরে এ পর্যন্ত আট ম্যাচ খেলেছে আর্জেন্টিনা; হারের তেতো স্বাদ কেউ স্কালোনির দলকে দিতে পারেনি। সবগুলোই জেতা আলবিসেলেস্তাদের আত্মবিশ্বাস এখন তুঙ্গে। সবশেষ লিওনেল স্কালোনির দল হারের তেতো স্বাদ পেয়েছিল গত নভেম্বরে, বিশ্বকাপ বাছাইয়ের ম্যাচে উরুগুয়ের বিপক্ষে ২-০ গোলে।

কানাডার সাত ম্যাচের ফল ভালো-মন্দ মিশিয়ে। দুটি করে জয় ও হার এবং বাকি তিন ম্যাচ ড্র। চলতি কোপা আমেরিকায় চার ম্যাচের মধ্যে টাইব্রেকারের জয় বাদ দিলে তাদের জয় মাত্র একটি; গ্রুপ পর্বে পেরুর বিপক্ষে, ১-০ গোলে।

ফিফা র‍্যাঙ্কিংয়ে ব্যবধান ৪৭ ধাপ, মানে দুই দলের মধ্যে মিল খুঁজে পাওয়া দুঃস্কর। তারপরও অন্ত্যমিল একটু আছে বৈকি! দুই দলই কোয়ার্টার-ফাইনালের বৈতরণী পেরিয়েছে টাইব্রেকারে জিতে। একুয়েডরকে ৪-২ ব্যবধানে আর্জেন্টিনা এবং ভেনেজুয়েলাকে ৪-৩ গোলে হারিয়েছিল কানাডা।

পরিসংখ্যানের পাতায় যেমন স্বস্তিতে আর্জেন্টিনা, কোচ স্কালোনিরও দল নিয়ে নেই তেমন কোনো অস্বস্তি। আক্রমণভাগে আলো ছড়াচ্ছেন লাউতারো মার্তিনেস; ৪ গোল নিয়ে এখন পর্যন্ত আসরের সর্বোচ্চ গোলদাতা ইন্টার মিলানের এই ফরোয়ার্ড। গোল পেয়েছেন আরেক ফরোয়ার্ড হুলিয়ান আলভারেসও।

আক্রমণভাগের প্রাণভোমরা মেসির গোল না পাওয়া নিয়ে অবশ্য একটু খচখচানি আছে স্কালোনির। গোল যার কাছে নস্যি, সেই তিনিই এখনও গোলহীন। তার ওপর এই মহাতারকা একুয়েডর ম্যাচে টাইব্রেকারে করেছিলেন মিস!

মেসির না পারাটা ওই ম্যাচে পুষিয়ে দেন এমিলিয়ানো মার্তিনেস। পোস্টের নিচে পাহাড়সমান দৃঢ়তা নিয়ে এই গোলরক্ষক দুই শট ফিরিয়ে আর্জেন্টিনাকে রাখেন জয়রথে। অন্য ম্যাচগুলোয় যে শূন্যতা কখনও লাউতারো মার্তিনেস, কখনও আলভারেস পূরণ করেছেন। এখন মহাতারকার স্বরূপে ফেরার অপেক্ষায় আর্জেন্টিনা।

একুয়েডর ম্যাচে আনহেল দি মারিয়াকে খেলাননি স্কালোনি। অভিজ্ঞ এই অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার পর্যাপ্ত বিশ্রাম নিয়ে আরও সতেজ হয়ে নামতে পারেন কানাডার বিপক্ষে। সব মিলিয়ে এগিয়ে থেকেই মাঠে নামবে আর্জেন্টিনা, কিন্তু নির্ভার থেকে নয় মোটেও। কেননা, এবারের হিসাব সেমি-ফাইনালের, এক ম্যাচের।

কানাডার ডিফেন্ডার আলফুঁস ডেভিস তো সংবাদ সম্মেলনে রাখঢাক না করেই বলেছেন, আর্জেন্টিনার বিপক্ষে যুদ্ধে নামবেন তারা।

“নিজেদের সবকিছু দিয়ে লড়তে হবে। এই ম্যাচে কী অপেক্ষা করছে, আমরা জানি। জিতলে এগিয়ে যাব, হারলে বাড়ি ফিরতে হবে। তারা সব শক্তি নিয়ে নামবে। আমরা সবসময়ের চেয়ে বেশি ক্ষুধার্ত।”

দলটির কোচ জেসি মার্শের কণ্ঠে অবশ্য হুঙ্কার নেই; বাস্তবতার শক্ত জমিনে পা রেখে তিনি বলেছেন, আর্জেন্টিনাকে হারাতে হলে ‘জীবনের সেরা ম্যাচ’ খেলতে হবে তাদের।

মার্শ অবশ্য এই ম্যাচকে দারুণ একটা সুযোগ হিসেবেও দেখছেন। আর সেটা লুফে নিতে দিচ্ছেন ‘ইতিবাচক ও আক্রমণাত্মক’ খেলার বার্তা। মানেটাও পরিষ্কার, ঐতিহ্যে, পরিসংখ্যানে, সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সের পাল্লায় যতই পিছিয়ে থাক কানাডা, মাঠের লড়াই শুরু আগেই ‘যুদ্ধের দামামা’ ঠিকই বাজিয়ে দিয়েছে তারা।

 ফরিদপুর প্রতিদিন
 ফরিদপুর প্রতিদিন
এই বিভাগের আরো খবর